শিরোনাম
ন্যায়বিচার পেতে আমাকে ক্ষমতায় আসতে হয়েছে : প্রধানমন্ত্রী নরসিংদীতে বাস-কাভার্ডভ্যানের মুখোমুখি সংঘর্ষে নিহত ২ চাঁনমারী এলাকার কিশোর গ্যাং আশিক গ্রুপের দু’সদস্যসহ গ্রেফতার ৫ ফকিরহাটে ২৪ কেজি গাঁজা ও ৩৬০ পিস ইয়াবাসহ চার মাদক কারবারি গ্রেফতার নগরীতে শতাধিক ক্ষুদে শিক্ষার্থীকে বিদ্যাবন্ধু’র শিক্ষা উপকরণ বিতরণ  বাগেরহাটে অগ্নিকাণ্ডে কিশোরের মৃত্যু রামপালে যুবককে মারপিট, টাকা-স্বর্ণের চেইন ছিনতাইের অভিযোগ শিশুর শ্লীলতাহানীর অভিযোগে মামলা, অভিযুক্তকে গণপিটুনি আশাশুনিতে পিকআপ-ইজিবাইক সংঘর্ষে দুই নারী হজ্বযাত্রী নিহত ইউরোপীয়রা জানতো, নির্বাচনে আমিই জিতব : প্রধানমন্ত্রী

মাশরাফীর সিলেটকে হারিয়ে চট্টগ্রামের শুভসূচনা

খুলনার চিত্র ডেস্কঃ
  • প্রকাশিত : শুক্রবার, ১৯ জানুয়ারী, ২০২৪

শেষ দুই ওভারে চট্টগ্রামের প্রয়োজন ছিল ১৪ রান। বল করতে এলেন সিলেটের অধিনায়ক মাশরাফী বিন মোর্ত্তজা। স্ট্রাইকে ছিলেন নাজিবুল্লাহ জাদরান। ১৯তম ওভারের প্রথম দুই বলে দুই ছক্কা ও তৃতীয় বলে চার মারেন নাজিবুল্লাহ। ৯ বল বাকি থাকতেই জয়ের বন্দরে নোঙর ফেলে চট্টগ্রাম। বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগে (বিপিএল) আজ শুক্রবার (১৯ জানুয়ারি) দিনের দ্বিতীয় ম্যাচে সিলেট স্ট্রাইকার্সকে সাত উইকেটে হারায় চট্টগ্রাম চ্যালেঞ্জার্স।

আগে ব্যাট করে ২০ ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে ১৭৭ রান তোলে সিলেট। জবাবে ১৮ দশমিক তিন ওভারে তিন উইকেট হারিয়ে ১৮০ রান করে চট্টগ্রাম।

বড় লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইকেট হারায় চট্টগ্রাম। রিচার্ড এনগারাভার বলে হেরি টেক্টরের ক্যাচে পরিণত হন চট্টগ্রামের ওপেনার তানজিদ তামিম (২)। অপর ওপেনার আভিস্কা ফার্নান্দো ২৩ বলে ৩৯ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে দলকে কিছুটা এগিয়ে নেন। দলীয় ৫৭ রানে নাজমুল ইসলামের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন তিনি।

অষ্টম ওভারে বোলিংয়ে এসে নিজের প্রথম বলেই উইকেট পান মাশরাফী। শর্ট রান আপে করা মিডিয়াম পেসের বল ইমরান উজ্জামান মিড অনে উড়িয়ে মারেন। সহজ ক্যাচ লুফে নেন ইয়াসির আলী। ৫৯ রানে ‍তিন উইকেট হারানো চট্টগ্রামকে ম্যাচে ফেরান শাহাদাত হোসেন ও নাজিবুল্লাহ। এই দুজনের অবিচ্ছিন্ন ১২১ রানের জুটিতে জয়ের দেখা পায় চট্টগ্রাম।

ম্যাচে ফিফটির দেখা পান শাহাদাত ও নাজিবুল্লাহ দুজনই। ৩৯ বলে চারটি করে চার ও ছক্কায় ৫৭ রানে অপরাজিত থাকেন শাহাদাত। অন্যদিকে, নাজিবুল্লাহ ছিলেন আরও আগ্রাসী। ২০৩ দশমিক ৩৩ স্ট্রাইক রেটে ৩০ বলে ৬১ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। তার ইনিংসটি সাজানো ছিল তিনটি চার ও পাঁচটি ছয়ের মারে।

সিলেটের হয়ে একটি করে উইকেট নেন মাশরাফী, এনগারাভা ও নাজমুল।

এর আগে, টস জিতে সিলেটকে ব্যাটিংয়ে পাঠান চট্টগ্রাম অধিনায়ক শুভাগত হোম। অধিনায়কের সিদ্ধান্তের প্রতি সুবিচার করতে পারেননি চট্টগ্রামের বোলাররা। উদ্বোধনী জুটিতে সিলেটের দুই ওপেনার নাজমুল হোসেন শান্ত ও মোহাম্মদ মিঠুন মিলে যোগ করেন ৬৭ রান। জুটি ভাঙেন নিহাদুজ্জামান। ৩০ বলে ৩৬ রান করা শান্তকে আভিস্কা ফার্নান্দোর ক্যাচ বানিয়ে ফেরান নিহাদ।

আরেক ওপেনার মিঠুন আউট হন ২৮ বলে ৪০ রান করে। কার্টিস ক্যাম্পারের বলে ইমরানের তালুবন্দি হন তিনি। ৯৫ রানে দুই উইকেট হারানো সিলেটকে পরের পথটুকু টেনে নেন জাকির হাসান ও হ্যারি টেক্টর। দুজনের অবিচ্ছিন্ন ৮২ রানের জুটিতে বড় সংগ্রহ পায় সিলেট।

ম্যাচে অর্ধশতক তুলে নেন জাকির। ৪৩ বলে ৭০ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। ১৬২ দশমিক ৭৯ স্ট্রাইক রেটে সাতটি চার ও এক ছক্কায় এ রান করেন তিনি। টেক্টর অপরাজিত থাকেন ২০ বলে ২৬ রানে।

চট্টগ্রামের হয়ে নাহিদ ও ক্যাম্পার একটি করে উইকেট নেন।

 

সংশ্লিষ্ঠ আরও খবর