খুলনা জেলা বিএনপি নেতা আবু হোসেন বাবু গ্রেফতার : বিএনপি নিন্দা

খুলনার চিত্র ডেস্কঃ
  • প্রকাশিত : বৃহস্পতিবার, ২ জুলাই, ২০২০

খুলনা জেলা বিএনপির প্রথম যুগ্ম সাঃ সম্পাদক আবু হোসেন বাবুকে আজ সকালে নিজ বাড়ি আইচগাতি থেকে স্থানীয় ক্যাম্প ইনচার্জ এস আই ইব্রাহিম আটক করেন। পুলিশ জানায়, নাশকতাসহ তিনটি মামলায় ওয়ারেন্ট থাকায় বাবুকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

খুলনা জেলা বিএনপির সভাপতি এডভোকেট শফিকুল আলম মনা জানান, করোনায় আক্রান্ত ছিলেন বাবু। বুধবার তার করোনার ফলোআপ রিপোর্টে নেগেটিভ এসেছে। বাবু পরিবারের অন্য সবার থেকে আলাদা হয়ে পৃথক রুমে চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী হোম আইসোলেশনে ছিলেন। সেখান থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়েছে। ১৪ দিন পর তার আরও একটি টেষ্ট করা লাগবে। এ অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করাটা অমানবিক। অবিলম্বে বাবুর মুক্তির দাবি জানিয়েছেন বিএনপির এ নেতা।

রূপসা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মোল্লা জাকির হোসেন হোম আইসোলেশন থেকে বাবুকে গ্রেফতার করার বিষয়ে বলেন, ওয়ারেন্ট আছে তাই গ্রেফতার করেছি। এটা তার শারীরীক বিষয়। ওটা আমাদের দেখার বিষয় নয়। আমরা আদালতের নির্দেশ পালন করেছি।

কোন সালের নাশকতা মামলা জানতে চাইলে ওসি বলেন, যতদূর মনে আছে ২০১৬/১৭ সালের মামলা হবে।

এদিকে খুলনা জেলা বিএনপি’র যুগ্ম-সম্পাদক, সাবেক ছাত্রনেতা শেখ আবু হোসেন বাবুকে ০২ জুলাই’২০ বৃহস্পতিবার সকালে নিজ বাড়ী থেকে আটক করে তথাকথিত সরকারের দায়েরকৃত পুরানো সাজানো পাতানো নাশকতার মামলায় গ্রেফতার করায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন বিবৃতি দিয়েছেন খুলনা জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ। উল্লেখ্য গত ১৩ জুন করোনা আক্রান্ত আবু হোসেন বাবু হোম আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন ছিলেন। অবশ্য ২য় করোনা পরীক্ষায় নেগেটিভ হলেও তিনি বর্তমানে সুস্থ ও স্বাভাবিক নন, এ অবস্থায় তাকে গ্রেফতার করে জেলহাজতে নিক্ষেপ করাটাকে চরম অমানবিক। অবিলম্বে জেলা বিএনপি নেতা আবু হোসেন বাবুর নিঃশর্ত মুক্তি দাবি জানিয়েছেন খুলনা জেলা বিএনপি ও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতৃবৃন্দ।
বিবৃতিদাতারা হলেন খুলনা জেলা বিএনপির সাংগঠনিক সম্পাদক এস এম মনিরুল হাসান বাপ্পী, সহ সভাপতি খান জুলফিকার আলী জুলু, মোস্তফা উল বারী লাভলু, শেখ আলী আজগর, ইলিয়াস মল্লিক, যুবদল সভাপতি এস এম শামীম কবির, স্বেচ্ছাসেকবদল সভাপতি তৈয়বুর রহমান, শ্রমিকদল সভাপতি বাবু উজ্জ্বল কুমার সাহা, যুবদল সাধারন সম্পাদক ইবাদুল হক রুবায়েদ, ওলামাদল আহবায়ক আলহাজ্ব হাফেজ মাও. ফারুক হোসেন, জাসাস আহবায়ক সাইদুজ্জামান খান, হাফিজুর রহমান, অধ্যাপক আইয়ুব আলী, মতিউর রহমান বাচ্চু, মিরাজুর রহমান মিরাজ, খান আইয়ুব আলী, স্বেচ্ছাসেকবদল সাধারন সম্পাদক আতাউর রহমান রুনু, শ্রমিকদল সাধারন সম্পাদক খান ইসমাইল হোসেন, ছাত্রদল সভাপতি আব্দুল মান্নান মিস্ত্রী, সাধারন সম্পাদক গোলাম মোস্তফা তুহিন, মহিলাদল সাধারন সম্পাদক এ্যাড. সেতারা সুলতানা, রফিকুল ইসলাম বাবু, মাসুদ জমাদ্দার, আরিফুর রহমান, শফিকুল ইসলাম শফিক, আবু মুসা, হাবিবুর রহমান হবি, আব্দুল মালেক, মাসুম বিল্লাহ, খান আনোয়ার হোসেন, শেখ ইউসুফ আলী, শেখ আব্দুর রহমান, হিরাঙ্গীর হোসেন হিরু, হিরু মোড়ল, মৎস্যজীবীদল সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক আজিজুল ইসলাম, ওলমাদল সদস্য সচিব হাফেজ মাও. নজরুল ইসলাম, জাসাস সদস্য সচিব শহিদুল ইসলাম শহিদ প্রমূখ।

সংশ্লিষ্ঠ আরও খবর